১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ সকাল ১০:৩৮ শনিবার
  1. আন্তর্জাতিক
  2. কমলনগর উপজেলা
  3. কিশোরগঞ্জ জেলা
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম জেলা
  6. জাতীয়
  7. তথ্য-প্রযুক্তি
  8. নারী ও শিশু
  9. নেত্রকোনা জেলা
  10. নোয়াখালী জেলা
  11. ফেনী জেলা
  12. বিনোদন
  13. ভোলা জেলা
  14. ময়মনসিংহ জেলা
  15. রাজনীতি

উপ-সম্পাদকীয়: এসপি’র বাংলোয় বাক প্রতিবন্ধী বোবা’দের নিয়ে ইফতার

প্রতিবেদক
মোহাম্মদ রাসেল পাটওয়ারী
মার্চ ২৯, ২০২৩ ১১:৫০ অপরাহ্ণ

মো. মাহফুজ্জামান আশরাফ, পুলিশ সুপার লক্ষ্মীপুর: (অনুভূতির বর্হিপ্রকাশ-০৭): “যেদিন বোবা’র বাবা হলাম, সেদিন মনে খুব কষ্ট আমার, কি করবো এই সন্তান নিয়ে, কেউ দাম দেয় না, অবহেলা আর তাচ্ছ্বিলো, সেই বোবা সন্তানের জন্যই আজ এত সম্মান পেলাম।

কখনোই স্বপ্নেও ভাবিনি এসপি সাহেবের বাসায় আমাকে দাওয়াত দিবে। আজ এই বোবা সন্তানের পিতা হিসেবে যে চরম সম্মান পেলাম, তা যেন বেহেশতের সুখ পেলাম।

এসপি সাহেব আমার বোবা ছেলেকে আর আমাকে দাওয়াত দিয়েছে ইফতারের। জীবনে কখনো ভাবিনি এসপি সাহেবের বাসায় ঢুকবো। আজ কি সম্মানেই না ঢুকলাম, আমাকে ফুল দিলো। আহ্ কি যে ভালো লাগলো, আল্লাহ এসপি সাহেবের ভালো করুক…..”

এ কথা গুলো অপলকে বলে গেলো বাক প্রতিবন্ধির এক বাবা। পুনাক লক্ষ্মীপুর আয়োজনে ইফতার-এ এক বাবার অনুভূতিতে আমি ব্যাকুল আর আবেগয়াপ্লুত।

এসপির বাংলোয় আজ বাক প্রতিবন্ধী বোবা’দের নিয়ে ইফতার। বোবাদের সাথে মজু চৌধুরীর ঘাটে পরিচয় হয়েই আমি তাদের ভক্ত হয়ে যাই। তাদের অপলক দৃষ্টি, তাদের শব্দহীন আওয়াজ আর তাদের ইশারা আমাকে আকৃষ্ট করে। আমার মন ছুয়ে যায় তাদের প্রতি ভালবাসায়।
একবার ভাবলাম তাদের ওখানে গিয়েই ইফতার করবো। কিন্তু পরক্ষনেই নিমা বললো,

— ওদের বাংলোতেই এনে খাওয়ায়। ওরাতো কোনদিনও এসপির বাসায় আসতে পারবে না। একটা সুযোগ করে দাও…?
— নিমার অসম ভাবনায় বিমোহিত হলাম। কি চমৎকার ভাবনা। আসলেইতো এসপির বাসায় কত ভিআইপি, রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিরা আসে। এবার বাক প্রতিবন্ধীরা আসবে। দারুণ একটা অনুভূতি এলো মনের ভেতরে, অনেক গহীনে।

ওদের জন্য সকাল থেকেই আয়োজন। সুজেলকে দায়িত্ব দিয়েছিলাম ওদের দাওয়াত দিতে। বলেছিলাম, বোবাদের সাথে তাদের অভিভাবককে আসতে বলো। তাদের বলবে,
— এসপির বাসায় তাদের দাওয়াত

বাসার, ভেতর একটা প্যান্ডেল করলাম। ভিআইপিদের নিমন্ত্রণে যেরূপ, ঠিক সেরূপই করার সিদ্ধান্ত নিলাম। ওরা আজ আমার ভিআইপি। সুজেল ওদের নিয়ে হাজির হলো। ওদেরকে নিয়ে আসার জন্য গাড়ি পাঠিয়েছিলাম মজু চৌধুরীর ঘাটে। ইফতারের আগেই চলে এলো প্রিয় সেই বাক প্রতিবন্ধীরা। দরজা খুলে দাঁড়িয়ে আমি আর নিমা। পাশে পুনাকের অন্যান্য সদস্য ও আমার সন্তানেরা। আগেই ফুলের ষ্টিক এনেছিলাম। ফুল দিয়ে বরণ করবো। তাই শুরু করলাম এক এক করে।

তবে দিনের আলোয় তাদের সবার সাথে একটু ছবি তুলে নিলাম। ছোট্ট একটা শিশুকে দেখে আমায় বললো, — এও বোবা, কথা বলতে পারে না।
মায়ের কোলে থাকা শিশুটিকে দেখে খুব মায়া হয়ে গেল। একটু আদর করলাম। কিন্তু সে যেন বাকরূদ্ধ আর নির্বাক হয়ে শুধু তাকিয়ে রয় আমার দিকে। মা বললো, — ওর ক্ষিধে লেগেছো তো স্যার, তাই একটু এমন হয়ে আছে। ছবি তুলেই এক এক করে রজনীগন্ধা আর গোলাপের সুগন্ধ জড়ানো ফুল দিয়ে বরণ করতে থাকলাম আর ওসি ডিএসবি (ডিআইও-১) আর জাকারিয়াকে বললাম,

— ওদের সামনের টেবিলে বসাও। বাক প্রতিবন্ধীরা সামনের দুই টেবিলে বসবে আর তাদের অভিভাবকরা পরের টেবিলে।তাদেরই জন্য আয়োজন। আমার ছেলে মেয়েকে তাদেরই এক টেবিলে হুইল চেয়ার দেয়া সেই অসহায় মানুষের পাশেই বসতে দিলাম। ছেলে-মেয়েও আমার খুব স্বাচ্ছন্দে বসে গেলো তাদের মাঝে।

খাবার দেখে তারা খুব উচ্ছ্বসিত। এত খাবার দেখে তারা ভীষণ উদ্বেলিত। বোবাদের ইশারায় বললাম, — সব না খেতে পেলে,ব্যাগে ভরে নাও। — বাড়ি গিয়ে খেও।

খুব খুশী হলো তারা। টেবিলের সামনে রাখা খাবার গুলো ব্যাগেও ভরে নিলো। তাদের চোখে মুখে বিজলীর মতো আলোক চমকানী ভালবাসা, আর ভালবাসা। একজন অভিভাবকতো কেঁদেই ফেললো এত সম্মান আর ভালবাসায়।

বিদায় বেলায় তারা আমাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায়। একে একে জড়িয়ে ধরলো আমায়। যেন আমার বুকে শান্তি প্রশান্তি খুজে পায়। আমাকে ভীষণ জোরে জড়িয়ে ধরে। আমাকে যেন তারা ছাড়তেই চায় না।
অনুভব করলাম, — শব্দহীন মানুষের ভালবাসার বিকট শব্দ — কথা বলতে না পারা এদের,চোখের পলকে অসংখ্য কথা আর কথা — উচ্চারণ করতে না পারা এদের, মনে সমস্বরে কৃতজ্ঞতার চিৎকার করা ভালবাসার উচ্চারণ —

আমি ধন্য…
আমি কৃতজ্ঞ…
আমি এদের পেয়েছি…
এদের কথা ঐ আকাশ বাতাস শুনে যায়…
মন ভরে যায় এদের চোখে আমার প্রতি দোয়া।

২৮.০৩.২৩

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20

সর্বশেষ - কমলনগর উপজেলা

আপনার জন্য নির্বাচিত