১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ রাত ৩:৪১ রবিবার
  1. আন্তর্জাতিক
  2. কমলনগর উপজেলা
  3. কিশোরগঞ্জ জেলা
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম জেলা
  6. জাতীয়
  7. তথ্য-প্রযুক্তি
  8. নারী ও শিশু
  9. নেত্রকোনা জেলা
  10. নোয়াখালী জেলা
  11. ফেনী জেলা
  12. বিনোদন
  13. ভোলা জেলা
  14. ময়মনসিংহ জেলা
  15. রাজনীতি

তাড়াইলে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান

প্রতিবেদক
মোহাম্মদ রাসেল পাটওয়ারী
ডিসেম্বর ১৯, ২০২৩ ১০:১১ অপরাহ্ণ

রুহুল আমিন, তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের তাড়াইল উপজেলা পরিষদের সামনে এবং সদর বাজারের মূল রাস্তায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

সোমবার বিকেল ৩টার দিকে উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান শুরু করে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে উপজেলা সদরের মূল রাস্তার উপর অবৈধ ভাবে গড়ে ওঠা সব ধরণের স্থাপনা উচ্ছেদ করা হবে বলে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন এর নেতৃত্বে অভিযান চলছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা এসএম আবু মোতালিব, উপজেলা উপ-প্রশাসনিক কর্মকর্তা মুহাম্মাদ মাহবুব আলম সহ তাড়াইল থানা পুলিশ।

জানা যায়, তাড়াইল উপজেলা পরিষদের সামনে এবং মাদরাসা মার্কেট এলএসডি রোডে দীর্ঘদিন ধরে নানা ধরণের অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠে। চা-পান, মুদিদোকান এবং কাঁচামাল থেকে শুরু করে নানা ধরণের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। অবৈধ স্থাপনা আর নোংরা ময়লা-আবর্জনার কারণে নষ্ট হচ্ছে বাজারের দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ।

সুত্র জানায়, উপজেলা পরিষদ ও সদর বাজারে গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বারবার বলা হয়। কিন্তু এর পরেও ওই সব অবৈধ স্থাপনার মালিক নারী-পুরুষরা তাদের স্থাপনা আকড়ে ধরে ছিলেন। ওই সব স্থাপনা সরিয়ে না নেওয়ায় শেষ পর্যন্ত ভ্রাম্যমান আদালত অভিযানের মাধ্যমে ওই সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ শুরু করেছে। আগামী সাত দিনের মধ্যে সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে বাজারের দৃষ্টিনন্দন পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হবে বলে জানা যায়।

অবৈধ স্থাপনার মালিক চা দোকানদার আবদুল ওয়াহাব জানান, বহু বছর ধরে দোকান ঘর তৈরি করে সেখানে চা, পান, বিড়ি-সিগারেট বিক্রি করে আসছেন। দোকানে যা আয় হয় তা দিয়েই তার সংসার চলে। কিন্তু হঠাৎ করে ভ্রামান আদালত অভিযান চালিয়ে তার দোকান ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়েছে। উপজেলা পরিষদের সামনে কাঁচামাল বিক্রি করে সংসার চালাতেন সুনাতন মিয়া। দোকানটি ভেঙে গুড়িয়ে দেওয়ায় পরিবার পরিজন নিয়ে কি খেয়ে বেঁচে থাকবে এমন দুশ্চিন্তায় পড়েছেন তিনি।

মাদরাসা মার্কেট এলএসডি রোডে চা দোকানদার মিজানুর রহমান জানান, চায়ের দোকানটা ছিল তার আয়ের একমাত্র অবলম্বন। কিন্তু দোকানটি ভেঙ্গে দেওয়ায় তার পরিবার এখন অসহায় হয়ে পড়েছে।

এদিকে ভ্রাম্যমান আদালত অভিযানের খবরে উপজেলা পরিষদ ও সদর বাজারে গড়ে উঠা বিভিন্ন ধরণের অবৈধ স্থাপনার মালিকরা তারা নিজেরাই তাদের স্থাপনা সরিয়ে নিতে শুরু করেছে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল মামুন জানান, উপজেলা পরিষদ ও মেইন রাস্তার উপর শতাধিক অবৈধ স্থাপনা গড়ে উঠেছে। এসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য তাদেরকে আগে থেকে বলা হয়েছে। যারা নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তাদের স্থাপনা সরিয়ে নেয়নি মুলত ওই সব স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, মানুষের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ যাতে কম হয় এজন্য সতর্কতা অবলম্বন করে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ না হওয়া পর্যন্ত অভিযান চলবে। কোনো অবস্থাতেই কোনো ধরণের অবৈধ স্থাপনা রাখা হবে না।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20

সর্বশেষ - কমলনগর উপজেলা

আপনার জন্য নির্বাচিত