১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ রাত ১:৩৫ শুক্রবার
  1. আন্তর্জাতিক
  2. কমলনগর
  3. কিশোরগঞ্জ
  4. কিশোরগঞ্জ জেলা
  5. খেলাধুলা
  6. চট্টগ্রাম
  7. জাতীয়
  8. তথ্য-প্রযুক্তি
  9. নারী ও শিশু
  10. নোয়াখালি
  11. ফেনী
  12. বিনোদন
  13. ভোলা জেলা
  14. ময়মনসিংহ
  15. রাজনীতি

নোয়াখালীতে দস্যুদের হামলায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১ জেলের মৃত্যু

প্রতিবেদক
মোহাম্মদ রাসেল পাটওয়ারী
ডিসেম্বর ২৪, ২০২৩ ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

দিদারুল আলম, সুবর্নচর (নোয়াখালী) প্রতিনিধি: নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার মেঘনা নদীতে চলতি বছরের ২৭ সেপ্টেম্বরে মাছ ধরার স্থান দখলকে কেন্দ্র করে দস্যুদের গুলিতে তখন তিনজন জেলের মৃত্যু হয়েছে। উক্ত ঘটনায় আহতদের মধ্যে নুর হোসেন (৩৫) নামক এক জেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল শুক্রবার মৃত্যুবরণ করে।

নিহত নুর হোসেন নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চর মজিদ গ্রামের মোস্তফার ছেলে। নিহতের পরিবার সূত্রে জানা যায়, গুলিবিদ্ধ নুর হোসেন গতকাল সোয়া এগোরটার সময় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন। শনিবার নিহতের মরদেহ তার নিজ জেলা নোয়াখালীতে আনা হয়েছে। তবে মৃতের লাশ দস্যুপক্ষের লোকজন কর্তৃক হাসপাতালের ছাড়পত্র ছাড়াই লাশ নিয়ে এসে গোপনে লাশ দাফন করতে চেয়েছিল বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। কিন্তু নিহতের স্বজনদের লোকজনের হস্তক্ষেপে নিহতের মরদেহ পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়। এরপর নিহতের নিজ এলাকা চরজব্বার থানার পুলিশ ফাঁড়িতে মরদেহ আনা হলে পরবর্তীতে লাশ পোস্টমর্টেম করার জন্য নোয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। পোস্টমর্টেম শেষ হলে নিহতের পরিবারের হাতে নিহতের লাশ হস্তান্তর করলে বিকেলে লাশ দাফন করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন চরজব্বার থানা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মীর হোসেন।

জেলে নিহতের মূল ঘটনার সূত্রপাত হয় বিগত ২৭ সেপ্টেম্বর (বুধবার) বিকেল ৫ টার দিকে মেঘনা নদীর স্বর্ণদ্বীপের পশ্চিমে সন্দ্বীপ অংশে যেখানে জলদস্যুদের মাধ্যমে গুলিবিদ্ধ হন প্রায় ৮ জন জেলে। উক্ত ঘটনায় প্রথমে ২ জন এবং পরবর্তীতে আরো একজন সহ মোট ৩ জন জেলে নিহত হয়। আর নুর হোসেনের মৃত্যু সহ এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪ জন। এছাড়াও আরো বাকি আহত জেলেদের তখন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

ঘটনার সূত্রপাত বিষয়ে জানতে চাইলে এলাকাবাসী জানান, সুবর্ণচর উপজেলার মাইন উদ্দিন মাঝি ও অলি মাঝি মেঘনা নদীর স্বর্ণদ্বীপের পশ্চিমে সন্দ্বীপ অংশ থেকে দীর্ঘ দিন থেকে মাছ শিকার আসছেন। কিছু দিন আগে থেকে মেঘনা নদীর মাছ শিকারের এ স্থান দখলের চেষ্টা চালায় জলদস্যু কেফায়েত বাহিনীর লোকজন। এর জের ধরে বিগত ২৭ সেপ্টেম্বর (বুধবার) বিকেলের দিকে কেফায়েত বাহিনী ওই স্থান দখল করে জেলেদের জাল কেটে দেয়। খবর পেয়ে দুটি মাছ ধরার ট্রলার নিয়ে সেখানে যান ভুক্তভোগী জেলেরা। একপর্যায়ে জলদস্যু কেফায়েত বাহিনীর সদস্য আলতাফ, নুর উদ্দিন ও জুয়েল জেলেদের দুটি মাছ ধরার ট্রলারে দুই দফায় হামলা চালিয়ে মাছ, জাল, ট্রলারসহ কোটি টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এসময় জলদস্যু বাহিনী গুলি ছুড়লে দুই জেলে গুলিবিদ্ধ হন এবং কমপক্ষে তিনজন আহত হন। এছাড়া তারা আরও পাঁচ জেলেকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে বলে ভুক্তভোগীদের।

সেপ্টেম্বরে মেঘনা নদীতে জেলেদের গুলিবিদ্ধ করে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে সুবর্ণচরে মানববন্ধন করে সর্বস্তরের জনগণ। এরপর কোর্টে মামলা হলে প্রধান অভিযুক্ত কেফায়েত সহ মোট ১০ জন গ্রেফতার করে পুলিশ। হত্যা মামলার আওতায় বর্তমানে তারা জেল হাজতে রয়েছেন।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20

সর্বশেষ - কিশোরগঞ্জ

আপনার জন্য নির্বাচিত