Tuesday, February 07, 2023

নান্দাইল পল্লী বিদ্যুৎ জোনাল অফিসে গ্রাহক হয়রাণী ও ঘুষ দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত

মো. শফিকুল ইসলাম শফিক, নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জ পল্লীবিদ্যুত সমিতির আওতাধীন পল্লী বিদ্যুৎ নান্দাইল জোনাল অফিস গ্রাহক হয়রাণী ও ঘুষ দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত হয়েছে বলে লোক মূখে প্রচারিত।

আব্দুল হাই পিতা মৃত সিরাজ আলী, গ্রাম আব্দুল্লাপুর, ইউনিয়ন রাজগাতি কতৃক পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি চেয়ারম্যান বরাবর লিখিত অভিযোগ থেকে জানা যায়, পল্লীবিদ্যুৎ নান্দাইল জোনাল অফিসের জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়েরে ও এলাকা পরিচালক শওকত হাসানের যোগসাজসে অভিযোগকারি কৃষক আব্দুল হাই ১ লাখ ৭৪ হাজার টাকা বিধি মোতাবেক জমা দেওয়ার পরও তার সেচ লাইন নির্মান না করে ভিন্ন গ্রামের ছাড়পত্র দিয়ে সম্পুর্ণ অবৈধ ভাবে জনৈক খোকনের সেচ লাইন মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়ের ও এলাকা পরিচালক তাদের নিজস্ব লোকজন নিয়ে রাতে আধারে নির্মান করে দেয়।

প্রেরিত অভিযোগ থেকে আরো জানা যায়,অবৈধভাবে এসটি বিদ্যুৎ লাইন এক্সপেন যাহার দূরুত্ব ৪৩৬ ফুট নান্দাইল এলাকা পরিচালক ও জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়ের দুজনে যোগসাজসে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে লাইন রাতের আধারে দলবল নিয়ে লাইন নির্মান করে দেয়।

খোকন মিয়ার অবৈধ লাইন ব্যাপারে নান্দাইল অফিসের ডিজিএমকে অবহিত করলে উপজেলা সেচ কমিটি খোকন মিয়ার সেচ ছাড়পত্র বাতিল করার চিঠি লেখার পরও তার লাইন সম্পুর্ণ সমিতির আইন বহির্ভুতভাবে নির্মান করা হয়েছে। এছাড়া অভিযোগে আরো উল্লেখ্য যে জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়েরের বাড়ি নান্দাইল উপজেলা পার্শ্ববর্তী হওয়ায় তার আত্মীয় স্বজন ও পরিচিত লোকজন দিয়ে অফিস একটি দালালচক্র তৈরি করেছে এবং তাদের মাধ্যমে অর্থের বিনিময়ে কাজ করা হয়।

এব্যাপারে ইঞ্জিনিয়ার আবুল খায়েরকে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ব্যাপারে মোবাইলে জানতে চাইলে তিনি জানান বিষযটি নিয়ে তদন্ত কমিটির সদস্য হিসাবে আমি এলকায় তদন্ত করতে যাই। আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে তা মিথ্যা বানোয়াট। ভোক্তভোগি কৃষক আব্দুল হাই এব্যাপারে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের আশুহস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20
সর্বশেষ সংবাদ