Wednesday, February 08, 2023

হাওর উন্নয়নের আরেক নাম দৃষ্টিনন্দিত অল অয়েদার সড়ক

এম তাজুল ইসলাম, ইটনা (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোণা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, মৌলভী বাজার, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ, সিলেট সহ ও ৭টি জেলা নিয়ে হাওর অঞ্চল। এক সময় এই হাওর অঞ্চলে শুকনায় পাউ, আর বর্ষায় নাউ ছাড়া চলাচলের কোন উপায় ছিল না।

কালের বিবর্তনে হাওর অঞ্চলের মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা চিন্তা করে নির্মাণ করা হয় দৃষ্টি নন্দিত অল অয়েদার সড়ক। বহু দিন পরে হলেও হাওর এলাকার মানুষের লালিত স্বপ্ন পূরণ হয়। সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর ৮৭৪.৮ কোটি টাকা খরচ করে নির্মাণ করেন, ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম অল অয়েদার সড়ক। যার দৈর্ঘ্য ২৯.৭৩ কিলোমিটার। যা করোনা মহামারির সময় গত ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে গণভবন থেকে সরাসরি যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করেন।

দৃষ্টি নন্দিত অল অয়েদার সড়ক উদ্বোধনের পরেই দেশ বিদেশে ব্যাপক সাড়া পড়ে যায়। বিশাল হাওর আর এই জল রাশির মাঝে ইটনা মিঠামইন অষ্টগ্রাম তিন উপজেলা নিয়ে যোগাযোগের এক নজীর স্থাপন করে ফেলে। যা জেলা ও রাজধানী সঙ্গে যোগাযোগের পথ এক ধাপ এগিয়ে যায়। তাই অল অয়েদার সড়কটি এক নজর দেখার জন্য দেশ বিদেশ থেকে পর্যটকরা হুমরি খেয়ে পড়ে হাওর অঞ্চলে। সেই পর্যটকদের ভীড়ে সৃষ্টি হতে থাকে নতুন কর্ম সংস্থান গড়ে উঠতে থাকে হোটেল মোটেল। দাবি উঠতে থাকে পর্যটন স্থান ও পর্যটক এলাকা ঘোষণার। ঠিক সেই মুহুর্তে এক শ্রেণির মানুষ হাওর এলাকার উন্নয়ন দেখে ঈর্শান্বিত হয়ে দৃষ্টি নন্দন অল অয়েদার সড়ক সম্পর্কে অপপ্রচারে লিপ্ত হয়।

সম্প্রতি উজান থেকে নেমে আসা পানি আর পাহাড়ি ঢলের জলের কারণে হাওরের নিম্ন অঞ্চল সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ, নেত্রকোণা, কিশোরগঞ্জ, বোর ধানের ফসল হানীর ঘটনা ঘটে। এতে করে কিছু মানুষ অতি উৎসাহিত হয়ে অল অয়েদার সড়ক সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলতে শুরু করে যা আধো কাম্য নয়।

ইটনা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান চৌধুরী কামরুল হাসান বলেন, ইটনা, মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, তিন উপজেলায় অল অয়েদার সড়ক নির্মাণের জন্য প্রাথমিক ভাবে ২০১২ সালে উদ্দ্যোগ গ্রহণ করা হয়। পর পর ২/৩ বছর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) এর ইঞ্জিনিয়ারগণ ও দেশের বিশেষজ্ঞ্যগণদের গবেষাণার মাধ্যমে শুকনা ও বর্ষার সিজনে ধারাবাহিক ভাবে হাওরের অবস্থান পর্যবেক্ষণ করে আধুনিক ডিজাইনের ২৯টি ছোট কালবার্ড ও ৩টি বড় বড় সেতু নির্মাণ করা হয়।

প্রাথমিক পর্যায়ে এ অল অয়েদার সড়কটি নির্মাণ করতে প্রায় ৬শত কোটি টাকা ব্যয় ধরা হলেও পরে তা বাড়িয়ে ৮৭৪.৮ শত কোটি টাকা করা হয়। হাওরের উন্নয়ন দেখে ঈর্শান্বিত হয়ে এক শ্রেণি মানুষ অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এই অপপ্রচার চালানোর আগে সংশ্লিষ্ট গবেষণা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কথা বলার প্রয়োজন ছিল। তিনি আরও বলেন, আপনারা নিজ চোখে দেখে আসেন অল অয়েদার সড়কে এখনো পানি আসছে কি না। যারা এই অপপ্রচার করছে আমি বলতে চাই তারা কোন না কোন বিনিময়ের মাধ্যমে হাওরের উন্নয়ন বাঁধা গ্রস্থ করতে এ কাজ করছে।

ইটনা উপজেলা আওয়ামী লীগ এর সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা হাজী ইসমাইল হোসেন বলেন, এখনও অল অয়েদার সড়কের পাশেই কোন পানি প্রবেশ করেনি। এক পর্যায়ে তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে যান এবং হাওরের উন্নয়ন বাধা গ্রস্থ করতে কিছু মানুষ এমন অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

ইটনা উপজেলার বিশিষ্ট সমাজ সেবক মো. বজলুর রহমান বলেন, যারা অল অয়েদার সড়ক সম্পর্কে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে তারা কাজটি ঠিক করছে না। অল অয়েদার সড়ক আমাদের এলাকার মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে। নতুন কর্ম সংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। অকাল বন্যা মূলত নদীর নাব্যতা না থাকার কারণে হয়েছে। নদীর গভীরতা না থাকাই অল্প পানিতে নদীর তীর উতলে হাওরে পানি প্রবেশ করে ফেলে। যা আমরা বিগত কিছু দিন পর পরই দেখতে পাই। হাওর অঞ্চলের দৃষ্টি নন্দিত অল অয়েদার সড়ক সম্পর্কে যারা অপপ্রচার করছে তারা হাওরের উন্নয়নকে বাঁধা গ্রস্থ করতে অপপ্রচার করছে বলেন মনে করেন হাওর এলাকার মানুষ।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20
সর্বশেষ সংবাদ