১৮ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ সন্ধ্যা ৭:৪৯ শনিবার
  1. আন্তর্জাতিক
  2. কমলনগর
  3. কিশোরগঞ্জ
  4. কিশোরগঞ্জ জেলা
  5. খেলাধুলা
  6. চট্টগ্রাম
  7. জাতীয়
  8. তথ্য-প্রযুক্তি
  9. নারী ও শিশু
  10. নোয়াখালি
  11. ফেনী
  12. বিনোদন
  13. ভোলা জেলা
  14. ময়মনসিংহ
  15. রাজনীতি

উপ-সম্পাদকীয়: স্মৃতিময় চর আবদুল্ল্যাহ ভ্রমণের একদিন

প্রতিবেদক
মোহাম্মদ রাসেল পাটওয়ারী
ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২৩ ৩:০১ অপরাহ্ণ

মো. মাহফুজ্জামান আশরাফ, পুলিশ সুপার লক্ষ্মীপুর: (অনুভূতির বর্হিপ্রকাশ-০৪): চরের মানুষ যে কতটা অসহায়ের মাঝে বসবাস করে তা আজ নিবিড় ভাবে উপলুদ্ধি করলাম। গরু মহিষ লালণ পালন করা এ জনপদের মানুষেরা নির্বাক স্বচ্ছ সহজ সরল জীবন যাপনে এরই মাঝে আনন্দ খুজে পায়। তব্ওু তো বেঁচে আছি-বোধে জাগ্রত সরোবরের অনাবিল কোলাহলে……….

সৃষ্টিকর্তার অপরূপ সৃষ্টির তুলনা অতুলনীয়। এমন সৃষ্টির সৌন্দর্য কখনোই এত ভালো লাগায় উপভোগ হতো না,যদিনা নৌকা চরে আটকে যেতো। চর আব্দুল্লাহতে শীতবস্ত্র বিতরণ করে ফেরার পথেই মাঝ নদীতে নৌকা আটকে গেলো। ওসি রামগতি বলে উঠলো, স্যার এইবার বোধহয় চরে নৌকা আটকে গেল। জোয়ারের আগে আর যাওয়া যাবে না।

দ্বি-প্রহরের উত্তপ্ত রোদের বিকিরণ গায়ে এসে পড়ছে। ছাতা নেয়া হয়নি। কোনই খারাপ লাগছে না। মেঘনার মাঝ নদীতে আটকে আছি আমরা। স্থানীয় চেয়ারম্যান আমাদের নৌকায়। উনি (যার পর নাই) মাঝিকে বিভিন্ন দিকে যাবার ডাইরেকশন দিয়ে যাচ্ছে। নৌকার মাঝিও সে মোতাবেক বড় বাঁশের লাঠি দিয়ে ঠেলে ঠেলে একটু একটু করে এগিয়ে যেতে থাকে।

নৌকার ইঞ্জিন চালু রেখেই কখনো জোরে কখনো ধীরে ধীরে এগুতে থাকে। নৌকার সবাই আমাকে নিয়ে অস্থির। কিভাবে নদীর ওপারে যাওয়া যাবে এই চিন্তায় সবার মাঝে। দূর থেকে একটা স্পীড বোর্ট পাওয়া গেলো। আমি এদের ছেড়ে স্পীডবোর্টে উঠলাম না। ড্রাইভার হাবিব ও ডিবির একজন উঠে পড়লো কিন্তু এদিক সেদিক দিয়ে স্পীড বোর্ট যাবার চেষ্টা করেও ব্যার্থ হয়ে গেলো। স্পীড বোর্টটিও চরে আবার আটকে যায় এবং আবার আমাদের নৌকাতে উঠে হলো।

হাটু পর্যন্ত পানি। দূরে চর জেগেছে। এই চর পেরিয়েই ওপারে আবার নদী। অনেক দিক দিয়ে অনেক ভাবেই চেষ্টা করা হলো কিন্তু চর এমন ভাবে আছে আর পানি ভাটার টানে এতটাই কমেছে, জোয়ারের অপেক্ষা ছাড়া আর উপায় নেই। ওসি আবার বললো,
— স্যার, এ জন্যই আপনাকে সকাল ১০টার আগে রওনা দিতে বলেছিলাম।
— বললাম, আমি আসলে বুঝতে পারিনি। জোয়ার ভাটার এ নিয়মের সাথে কোন অভিজ্ঞতাও নেই আমার। ওই দিকের মানুষ আমি তাই পানির এ হিসেব কতটা জরুরি তা নদীর এ মানুষ জনই জানে।

— স্যার, এরা সবাই পানির জোয়ার ভাটার হিসেব করেই নদীতে নামে। বললো, ওসি। আসলেই ইচ্ছে করলেই আমরা চর আব্দুল্লাহ বা এরকম কোন চরে যেতে পারবো না। চরের মানুষ যে কতটা অসহায়ের মাঝে বসবাস করে তা আজ নিবিড় ভাবে উপলুদ্ধি করলাম। গরু মহিষ লালণ পালন করা এ জনপদের মানুষেরা নির্বাক স্বচ্ছ সহজ সরল জীবন যাপনে এরই মাঝে আনন্দ খুজে পায়। তব্ওু তো বেঁচে আছি-বোধে জাগ্রত সরোবরের অনাবিল কোলাহলে।

ধৈর্য্য নিয়েই অপেক্ষায় আছি। ভালোই লাগছে আমার। চারিদিকে পানি আর পানি। কি বিশাল পানি রাশির মাঝে আছি। নৌকা থেকে মাঝির একজন পানিতে নেমে হেটে হেটে দূরে চরে গিয়ে উঠলো। আমারও মন চাইলো, আমিও নেমে পড়ি।

দূরে থেকে স্পীড বোর্ট এর মাধ্যমে সামান্য পানি পারি দিয়ে নেমে পড়লাম মেঘনার জলে। পা থেকে প্যান্টের কাপড় গুটিয়ে জুতা মোজা খুলে পানিতে পা ভেজাতেই শীতল ঠান্ডা পরশের ভালো লাগায় মুখরিত এ আমি। দারুণ ভালো লাগছে। নদীর জলে হাটতে হাটতে চরের ডাঙ্গায়। চরের বালির পথ কি চমৎকার ভাবে ছন্দে ছন্দে সাজানো।

ভীষণ ভালো লাগছিলো দিনের সূর্যের খরতাপ। আনন্দে উদ্বেলিত আমি। এভাবে ভালো লাগা পাওয়া হতো না আজ, এমন করে বেলা শুরু না হলে। অঘটনই যেন এক ঘটন। অনাকাঙ্ক্ষিতই যেন এক কাংখিত । সৃষ্টিকর্তার সৃষ্টি সত্যিই অপরূপের সম্মিলন। অপূর্বের চাদরে ঘেরা, তাইতো মনে হয় আজ বার বারই….
— দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়, ঘর হইতে দু পা ফেলিয়া…… ধন্য আমি আমার প্রিয় চর আব্দুল্লাহ।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20

সর্বশেষ - কমলনগর

আপনার জন্য নির্বাচিত