Sunday, August 14, 2022

উপ-সম্পাদকীয়: হাওর অঞ্চলের অকাল বন্যার প্রভাব ও করণীয়

এম তাজুল ইসলাম ইটনা (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ দেশের ৭টি জেলা নিয়ে হাওর অঞ্চল। জেলা গুলো হলো সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ, মৌলভীবাজার, কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোণা ও ব্রাক্ষণ বাড়ীয়া। প্রাণি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সূত্র মতে, এসব জেলায় জলাশয় ও জলা ভূমি রয়েছে ২৮ হাজার। বিল ৬ হাজার ৩ শতটি। হাওরের আয়তন ৮ লক্ষ ৫৮ হাজার ৪ শত ৬০ হেক্টর। হাওরের সংখ্যা ৪ শত ১৪ টি। এর মাঝে সুনামগঞ্জ হাওরের সংখ্যা ১৩৩ টি, কিশোরগঞ্জ ১২২ টি, নেত্রকোণা ৮০ টি, সিলেটে ৪৩ টি, হবিগঞ্জে ৩৮ টি, মৌলভী বাজারে ৪ টি এবং ব্রাক্ষণ বাড়ীয়ায় ৩টি।

আয়তনের দিক দিয়ে যা দেশের এক পঞ্চমাংশ স্থান দখল করে আছে। এখানে প্রায় ২ কোটি মানুষের বসবাস। হাওর অঞ্চলে বিভিন্ন প্রকার উৎপাদিত ধান জাতীয় খাদ্য চাহিদার ১৮ শতাংশ পুরণ করে থাকে। ২৬০ প্রজাতির মাছ ও ২৪ প্রজাতির চিংড়ি হাওরে পাওয়া যায়। দেশের জাতীয় চাহিদার ২৫% মাছ হাওর অঞ্চল থেকে সংগ্রহিত হয়। এসব মাছ সংগ্রহে প্রায় ১৩ লক্ষ মানুষ সরাসরি জড়িত রয়েছে। হাওর অঞ্চলের মানুষের প্রদান পেশা কৃষি।

বিশেষ করে ধান চাষ। এছাড়া বর্ষা মৌসুমে ভাসমান পানিতে মাছ ধরা। এই ভাসমান পানির মাছ খুবই সুস্বাদু। হাওরে ধনু, সুরমা, কুশিয়ারা, রোদা নদী, ঘোরা উত্রা, নরসুন্দা, সোয়াইজনি, নদী সহ প্রায় ১০ টি ছোট বড় নদী রয়েছে। কালের বিবর্তনে এসব নদী উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও পলি পড়ে নদীতে পানির ধারণ ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। আজ থেকে ৩০ বছর আগে যেখানে ধনু নদীতে শুকনা মৌসুমে ১৫ থেকে ২০ হাত পানি থাকতো।

সেখানে বর্তমানে ৭ থেকে ১০ হাত পানি আমরা নদীতে দেখতে পাই। এতে করে চৈত্র বৈশাখ মাসে কালবৈশাখী ঝড় ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের পানি নদীর নাব্যতা না থাকার কারণে সে পানি নদীতে ধারণ করতে না পেরে পানি উতলে উঠে নদী তীর অতিক্রম করে হাওরে উৎপাদিত বোর ধানের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে ফেলে। তখন হাওরের মানুষের বোর ফসল রক্ষার আর কোন উপায় থাকে না। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী পানি আর পাহাড়ী ঢলের পানিতে কৃষকের এমন ক্ষতি হয় যে, তখন জীবন যাপন করায় দুঃরহ হয়ে পড়ে।

অনেক সময় অকাল বন্যায় বোর ধানের এমন ক্ষতি মেনে নিতে না পেরে কৃষকগণ হার্ট এটাক করেও মারা যায়। যা দেশের বিভিন্ন জাতীয় পত্র পত্রিকায় ফলোয়াপ করে ছাপা হয়ে থাকে। কৃষকেরা একমাত্র বোর ফসল অকাল বন্যায় ক্ষতি পড়ে অনেক সময় কৃষক নিঃস্ব হয়ে পেটের দায়ে জীবন বাঁচানোর তাকিদে ঢাকা সহ বিভিন্ন বড় বড় শহরে রিকশা চালানোর পেশা বেচেঁ নিতে বাধ্য হয়। অকাল বন্যা থেকে বোর ফসল রক্ষার জন্য সরকার প্রতিবছর পানি উন্নয়ন বোর্ড সহ যে সকল প্রতিষ্ঠান কে বাধ নির্মাণের দায়িত্ব দেন, অনেক সময় তাদের দায় সারা কাজের কারণে অল্প পানির প্রভাবেই বাঁধ গুলো ভেঙ্গে যায়। তখন পানি উন্নয়ন বোর্ড কোন কোন সময় এলাকার মাছ শিকারী দের উপর দোষ চাপিয়ে অর্থাৎ তারা মাছ ধরতে বাঁধ কেটে দিয়েছে এমন অভিযোগ এনে নিজেরা বেচেঁ যাওয়ার হীন প্রচেষ্টায় লিপ্ত হয়ে যায়।

এজন্য সুষ্ট পরিকল্পনা করে সুইচ গেইট সহ স্থায়ী বাধ নির্মাণ ও নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার একান্ত জরুরী হয়ে পড়েছে। আর সে কাজের চেয়ে কাজের তদারকী খুবই বেশি জরুরী। যেন কেউ কারো উপর দোষ চাপিয়ে পাড় পেয়ে যেতে না পারে। আর তাই টেকসই বাধ নির্মাণ বা যে প্রতিষ্ঠান সে সব কাজ করবে থাকে নির্ধারিত মেয়াদ পর্যন্ত কাজের আওতায় থাকতে হবে বা জবাব দিহির আওতায় রাখার ভিত্তিতে স্থায়ী বাধ নির্মাণ ও নদীর নাব্যতা ফিরিয়ে আনার দাবী রাখছে বিজ্ঞ মহল। এতে করে কয়েক বছর পর পর আর হাওরের মানুষের অকাল বন্যার কবলে পড়তে হবে না বলে মনে করেন।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20
সর্বশেষ সংবাদ