Sunday, August 14, 2022

হোসেনপুর উপজেলা হাসপতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি: হোসেনপুর উপজেলা হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির প্রথম সভা গতকাল শনিবার (৬ আগস্ট) সকাল ১১টায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

হাসপাতালের সভাপতি ও স্বাস্থ্য বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সদস্য কিশোরগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নুর লিপির সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তানভীর হাসান জিকু, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, জেলা সিভিল সার্জন ডা. সাইফুল ইসলাম, বিশেষ অতিথি হোসেনপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সোহেল, উপজেলা আ’ লীগের সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা মো. জহিরুল ইসলাম নুরু মিয়া, সাধারণ সম্পাদক এমএ হালিম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা আ’ লীগের সদস্য শাহ মাহবুবুল হক, কিশোরগঞ্জ সদরের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলী সিদ্দিকী,উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. আঞ্জুমান ইসলাম, থানা অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আসাদুজ্জামান টিটু, দৈনিক ভোরের কাগজের উপজেলা প্রতিনিধি মো. জাকির হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য দীর্ঘ ৩ বছরের মধ্যে পদাদিকার বলে স্থানীয় সংসদ সদস্য হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি হওয়ায় সত্বেও গতকাল শনিবার ছিল প্রথম সভা। সভায় সংসদ সদস্যকে পেয়ে অন্তহীন সমস্যা তোলে ধরেন রাজনীতিবিদগণ। হোসেনপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি যদিও এ উপজেলার ২ লক্ষাধিক ছাড়াও ভৌগলিক অবস্থানের দিক দিয়ে ময়মনসিংহ জেলার গফরগাও, নান্দাইল ও জেলার পাকুন্দিয়া উপজেলার সীমান্ত এলাকার কাছাকাছি অবস্থানের কারণে প্রাথমিক চিকিৎসার একমাত্র ভরসার স্থল হওয়া স্বত্ত্বেও চিকিৎসা না পেয়ে চলে যেতে হয় অন্যত্র।

কেননা প্রয়োজনীয় সংখ্যক চিকিৎসকের সংকটের সাথে রয়েছে এক্স-রে মেশিন পরিচালনার জন্য নেই কোন রেডিওগ্রাফার, ইসিজি মেশিন পরিচালনার জন্য নেই কোন কার্ডিও গ্রাফার, পরিচন্ন কর্মী থাকলেও তারা নিজে কোন কাজ না করে ফরেন বডির মাধ্যমে কাজ করিয়ে নেওয়া, নেই ঔষধ সংরক্ষণের জন্য প্রয়োজনীয় স্টোরেজ ব্যবস্থা। অপারেশন থিয়েটার থাকা সত্বেও সার্জারী ও অজ্ঞানের চিকিৎসকের অভাবে চালু হচ্ছে না সিজারিয়ান কার্সক্রম।

গাইনী ও শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকলেও ডেপুটেশনে অন্যত্র বদলী এরকম নানাবিদ সমস্যাকে আরো প্রকট করে তোলেছে চিবিৎসা নিতে আসা রোগীদের নিরাপত্তার অভাবে হাতিয়ে নেওয়া হয় নগদ টাকা, স্বর্ণালংকার ও মোবাইল ফোন। তিন বছরে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের খোয়া গেছে ৫০-৬০ লক্ষ টাকার মালামাল। ১ মাসে দু’ নারী চোরকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে জনতা। এ যেজন্য নিরাপত্তার জন্য আনসার সদস্য নিয়োগের দাবী।

এ সকল সমস্যা সমাধানের আশস্ত করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, যে জন্য প্রয়োজন চাহিদা সম্পন্ন জনবল। কিশোরগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন মো. সাইফুল ইসলাম জানায়; অতি শ্রীঘ্রই চালু হতে যাচ্ছে অপারেশন থিয়েটার ।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20
সর্বশেষ সংবাদ