Wednesday, February 08, 2023

রামগতিতে বহুল আলোচিত মহিষ ফিরে পেলেন প্রকৃত মালিক

মুহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, রামগতি (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি: লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে আবদুল ওয়াদুদ নামের এক মহিষ মালিক দ্বীর্ঘ প্রতিক্ষার পর হাইকোর্টের রায়ে ফিরে পেলেন তার ৯টি মহিষ।

স্থানীয় সুত্রে জানান যায়, চর আলেকজান্ডার ইউনিয়নের আবদুল অদুদের ৯টি মহিষ তার শশুর নুর মোহাম্মদ ও তার দুই ছেলে সহ চর আবদুল্যা ইউনিয়নের চর গজারিয়া থেকে নিয়ে এসে রাখে চর আলগী ইউনিয়নের চর নেয়ামত গ্রামের ভুলুয়া নদীর পাড়। সাবেক মেয়র আজাদ উদ্দিন চৌধুরী মহিষগুলো তার মনে করে সেখান থেকে নিয়ে যায় তার বাসার পিছনে। এরই মধ্যে তিনি ২টি মহিষ বিক্রি করে দিয়ে বাকি মহিষগুলো চরে পাঠিয়ে দেয়ার জন্য নৌকাতে উঠানোর জন্য নিয়ে যায় নদীর পাড়। বাঁধ সাধে অদুদের করা মামলা।

থানা পুলিশ মহিষগুলো উদ্ধার করে থানায় নিয়ে তিন পক্ষকে নিয়ে শালিশী বেঠকে বসে প্রমানিত হয় নুর মোহাম্মদ বা আজাদ উদ্দিন মহিষের প্রকৃত মালিক নয়। প্রকৃত মালিক আবদুল ওদুদ। এবার শুরু হয় শশুর জামাইয়ের মধ্যে মহিষের মালিকানা নির্ধারণে মামলা। থানা আদালতের রায় নির্ধারণ পর্যন্ত মহিষগুলো রাখার জন্য জিম্মায় দেন চর বাদাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাখাওয়াত হোসেন জসিমকে। তখন কমলনগর উপজেলার কিছু সাংবাদিক তথ্য বিহীন মানহানীকর সংবাদ পরিবেশন করে ইউপি চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন জসিমের বিরুদ্ধে।

এদিকে ০৫/০২/২০২১ তারিখে আবদুল ওদুদ তার শশুর নুর মোহাম্মদ ও তার দুই শ্যালক সাইফুর এবং পারভেজ সহ তিন জনকে আসামী করে অতিরিক্তি জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আাদালত লক্ষ্মীপুরে মামলা দায়ের করেন। ধাপে ধাপে এ মামলা হাইকোর্ট পর্যন্ত গড়ায়।

আদালতের রায়ের পর বুধবার (৫সেপ্টেম্বর) সকালে রামগতি থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আলমগীর হোসেন মহিষের প্রকৃত মালিক আবদুল ওদুদকে তার ৫টি বড় মহিষ ও ৪টি বকনা মহিষ বুঝিয়ে দেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র এম মেজবাহ উদ্দিন, চর বাদম ইউপি চেয়ারম্যান সাখাওয়াত হোসেন জসিম, আবদুল ওদুদের শশুর নুর মোহাম্মদ সহ অনেকে।

আবদুল ওদুদ বলেন, আমি আমার মহিষ ফিরে পাওয়ায় খুশী।

রামগতি থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আলমগীর হোসেন জানান, দ্বীর্ঘ মামলা মকদ্দমার পর মহামান্য হাইকোর্টের রায়ে আবদুল ওদুদ মহিষের মালিকানা স্বত্ত্ব পায় আমরা তাকে মহিষগুলো বুঝিয়ে দিয়েছে।

Please follow and like us:
error0
Tweet 20
fb-share-icon20
সর্বশেষ সংবাদ